গ্যাস্ট্রিক বা গ্যাসের সমস্যা থেকে চিরতরে মুক্তির উপায়

ছোট বড় সবাই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভুগে। তৈলাক্ত ও ভারী খাবারই মূলত এর জন্য দায়ী। শুরুতে সচেতন না হলে এ সমস্যা পরবর্তীতে আলসারে রূপান্তর হওয়ার আশঙ্কা থাকে। অনেকেই এটা থেকে মুক্তি পেতে ঝুঁকে পরেন ওষুধের দিকে। এতে সাময়িক সময়ের জন্য মুক্তি মিললেও আসলে এটি ক্ষতিকর। তবে এমন কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো নিয়মিত খেলে খুব সহজেই আপনার গ্যাস্ট্রিক চিরতরে দূর করতে সাহায্য করবে।

গ্যাস্ট্রিক থেকে মুক্তির উপায়

আদা 

আদা এ ক্ষেত্রে খুবই কার্যকরী, অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদানসমৃদ্ধ খাবার। পেট ফাঁপা ও পেটে গ্যাস হলে আদা কুচি করে লবণ দিয়ে খান, দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্যাসের সমস্যা ভালো হবে।আদায় রয়েছে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদানসমূহ। এগুলো ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে সক্ষম। এজন্য গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা যখন জেরবার, তখন আদায় রাখুন ভরসা। এক্ষেত্রে কিছুটা আদা চিবিয়ে রস খেতে পারেন। অন্যথায় এটি পানিতে পাঁচ মিনিট ফুটিয়ে চায়ের মত পান করুন। নিমিষেই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে মুক্তি মিলবে।

দই

 দইয়ে ল্যাকটোব্যাকিলাস, অ্যাসিডোফিলাস ও বিফিডাসের মতো নানা ধরনের উপকারী ব্যাকটেরিয়া থাকে। এই সকল উপকারী ব্যাকটেরিয়া দ্রুত খাবার হজমে সাহায্য করে সেই সাথে খারাপ ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে। তাই দই খেলে হজম ভালো হয়, গ্যাস কমে। এই জন্য খাবারের পর দই খাওয়াটা বেশ কার্যকর।

রসুন

অ্যাসিডিটির সমস্যা হ্রাস করতে রসুনের কোনো বিকল্প হয় না বললেই চলে। এক্ষেত্রে এক কোয়া রসুন খেয়ে ফেললেই স্টমাকে অ্যাসিড ক্ষরণের মাত্রা স্বাভাবিক হতে শুরু করে। ফলে গ্যাস সংক্রান্ত বিভিন্ন উপসর্গ ধীরে ধীরে কমে যেতে শুরু করে।

পুদিনা পাতার পানি 

পুদিনা পাতা গরম পানিতে ফুটিয়ে খেলে পেট ফাঁপা, বমিভাব দূর করতে সাহায্য করে।

পানি 

পানি পানের সুফলের কথা সবাই জানেন। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে দুই গ্লাস করে পানি পান করবেন, দেখবেন সারাদিন আর গ্যাস্ট্রিকের যন্ত্রণা সহ্য করতে হবে না। কারণ পানি হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। তাছাড়া পানি পরিপাকতন্ত্র পরিষ্কার রাখতেও কাজ করে।

পেঁপে

 পেঁপেতে রয়েছে পেপেইন নামক এনজাইম যা হজমশক্তি বাড়ায়। তাই নিয়মিত পেঁপে খাওয়ার অভ্যাস করলে গ্যাসের সমস্যা কমতে থাকবে।ভারতীয় চিকিৎসক রুপালি দত্ত বলেন, গ্যাস্ট্রিক থেকে মুক্তি দেয় কাঁচা পেঁপে। এজন্য পেঁপের জুস বানিয়ে বা ফালি করে কেটে সামান্য লেবু মিশিয়ে খেতে হবে।

কলা

 যারা বেশি করে লবণ খান, তাদের গ্যাস ও হজমে সমস্যা হতে পারে। কলায় যে পটাশিয়াম থাকে, তাতে শরীরের সোডিয়াম ও পটাশিয়ামের ভারসাম্য বজায় থাকে। কলা হজমে সাহায্য করে। দেহ থেকে দূষিত পদার্থ দূর করে দেয়।

শসা

 শসা পেট ঠাণ্ডা রাখতে অনেক বেশি কার্যকরী। এতে রয়েছে ফ্লেভানয়েড ও অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি উপাদান যা পেটে গ্যাসের সমস্যা কমায়।

আনারস

আনারসে রয়েছে ৮৫ শতাংশ পানি এবং ব্রোমেলিন নামক হজমে সাহায্যকারী প্রাকৃতিক এনজাইম যা অত্যন্ত কার্যকরী একটি পাচক রস। এটি পরিপাকতন্ত্র পরিষ্কার রাখে। এছাড়া আনারস ত্বকের জন্যও বেশ উপকারী।

হলুদ 

হজম সংক্রান্ত সব ধরনের সমস্যা সমাধানে হলুদ বেশ কার্যকর। এটি চর্বিজাতীয় খাবার হজমে সাহায্য করে।

ডাবের পানি

ডাবের পানি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা অনেকটাই দূর করতে সাহায্য করে। এতে রয়েছে ফাইবার, যা হজমশক্তি বাড়ায় এবং পাশাপাশি অ্যাসিডিটি কমায়। এছাড়াও বুক জ্বালা পোড়া ও পেটে ব্যথা কমাতে ডাবের পানি অত্যন্ত কার্যকরী।

গ্যাস্ট্রিক বা গ্যাসের সমস্যা থেকে চিরতরে মুক্তির অন্যান্য উপায়

গোল মরিচের গুঁড়ো

গোল মরিচের গুঁড়ো আয়ুর্বেদিক চিকিৎসার ক্ষেত্রে খুব গুরুত্বপূর্ণ বলে ধরা হয়। এই গুঁড়ো শরীরে এসিডিটি এবং বদহজম কমাতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে। গোল মরিচের গুঁড়ো শরীরে হাইড্রোলিক এসিড ছড়াতে সাহায্য করে, যা পাকস্থলীর এসিডিটি কমাতে সাহায্য করে। তালের বা আখের গুড়ের সাথে গোল মরিচের গুঁড়ো মিশিয়ে খেলে বেশ ভালো ফল পাওয়া যায়। গোল মরিচের গুঁড়ো, আদা গুঁড়ো, ধনিয়া গুঁড়ো এবং সমান পরিমাণ শুকনো পুদিনা পাতা একসাথে মিশিয়ে দিনে দু’বার দুধের সাথে মিশিয়ে খেতে হবে।

কালো জিরা

এসিডিটির ব্যথা কমানোর জন্যে কালো জিরা বেশ উপকারী। কালো জিরার অনেক ঔষধি গুণ রয়েছে। চায়ে কালো জিরা মিশিয়ে খেলে বেশ উপকার হয়। কালো জিরার চা বানানোর জন্যে, প্রথমে এক কাপ গরম পানিতে এক চা চামচ কালো জিরা বেশ ভালোভাবে ফুটিয়ে নিতে হবে। এক চামচ মধু মিশিয়ে দুপুরে অথবা রাতের খাবারের পূর্বে এক কাপ কালো জিরার চা হজমে বেশ সাহায্য করে।

ঘোল বা মাঠা

টক দই দিয়ে তৈরি এই পানীয়কে আঞ্চলিকভাবে অনেকেই ঘোল বা মাঠা বলে থাকে। এসিডিটি কমাতে ঘোল বা মাঠা বেশ ভালভাবেই সাহায্য করে। এর কারণ হলো টকদই বেশ হজম উপকারী। টক দইয়ে লেবুর রস, পুদিনা পাতার রস, আদার রস, সামান্য লবণ এবং প্রয়োজনমত চিনি বা মধু মিশিয়ে ঘোল বানাতে হয়। খাওয়ার পর এক গ্লাস মাঠা শরীরের সকল ক্লান্তি দূর করে হজমে বেশ সাহায্য করে।

লবঙ্গ

পেটের হজমে লবঙ্গ বেশ কার্যকরী। কয়েকটি লবঙ্গ মুখে দিয়ে চিবুতে থাকলে বেশ ভালো ফল পাওয়া যায়। এটির স্বাদ কিছুটা বিস্বাদ হলেও ধীরে ধীরে অভ্যাস হয়ে যায়। লবঙ্গ বমির ভাব কমাতেও বেশ সাহায্য করে। লবঙ্গের রস খুব সহজেই এসিডিটি কমিয়ে আনতে পারে।

মৌরি

আমাদের রান্নাঘরে মৌরির কৌটা থাকা বেশ স্বাভাবিক ব্যাপার। হজমের জন্যে ভরা পেটে মৌরি চিবানো বেশ উপকারী। মৌরি গরম চায়ের সাথে খেলেও বেশ ভালো ফল পাওয়া যায়। গরম পানির সাথে চায়ের পাতা গরম করে, তার সাথে মৌরি ভালোভাবে ফুটিয়ে নিয়ে কিছুটা দুধ দিয়ে খেলে শরীরে চনমনে ভাব ফিরে আসে।

দারুচিনি

যারা নিয়মিত রান্না করেন তাদের জন্যে দারুচিনি খুব পরিচিত একটি নাম। সেই প্রাচীনকাল থেকে হজমের জন্যে কবিরাজদের মূল চিকিৎসা ছিল দারুচিনি সেবন। প্রাকৃতিকভাবেই এটি অম্লনাশক হিসেবে কাজ করে এবং পাকস্থলীর গ্যাস কমিয়ে আনতে বেশ সাহায্য করে। দারুচিনি আসলে বিভিন্নভাবে ব্যবহার করা যায়। রান্নায় তো প্রতিনিয়ত এর ব্যবহার হয়েই থাকে, এছাড়াও স্যুপ বা সালাদেও দারুচিনির গুঁড়ো ব্যবহার করা যেতে পারে। আরও ভালো ফলাফল পাওয়া যায়, যদি গরম পানি অথবা দুধের সাথে দারুচিনির গুঁড়ো সিদ্ধ করে খাওয়া যায়।

আমলকি

আমলকি শরীরের জন্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ ফল। এটি শুধুমাত্র যে হজমেই সাহায্য করে এমন নয়, এটি চুল, পাকস্থলী এবং চামড়ার জন্যেও বেশ উপকারী। প্রতিদিন খালি পেটে আমলকির জুস খেলে সারাদিনের জন্যে শরীরে ব্যাপক শক্তি সঞ্চিত হয়। আমলকিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে, যা এসিডিটি এবং কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতে বেশ সহায়ক।

যোয়ান

যোয়ান বা আজোয়ান আজকাল বেশ পরিচিত একটি নাম। ধনে গাছের মতো দেখতে গাছগুলোতে সাদা রঙের এক ধরনের ফুল হয়। বাংলাদেশের ময়মনসিংহ এলাকায় এর ব্যাপক চাষ হয়ে থাকে। এর বীজ সরাসরি খাওয়া যায়, আবার যোয়ানের তেলও পাওয়া যায়। পেটফাঁপা, ক্ষুধামন্দা এবং মুখের গন্ধ কমাতে যোয়ান বেশ উপকারী। এছাড়াও গরম পানির সাথে মিশিয়েও যোয়ানের পানি পান করা যায়।

আয়ুর্বেদিক চা

বর্তমানে আয়ুর্বেদিক চা খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বিভিন্ন ব্র্যান্ডের আয়ুর্বেদিক চায়ের পাতা আজকাল খুব সহজেই পাওয়া যায়। তবে নিজে ঘরে বানিয়ে খেতে চাইলে তুলসীর পাতা, পুদিনা পাতা, আঙ্গুরের রস, কালো জিরা ইত্যাদি মিশিয়ে চা পান করা যেতে পারে।

এতক্ষণ যেসব উপায় নিয়ে আলোচনা করা হলো, তার বেশিরভাগই বিভিন্ন আয়ুর্বেদিক এবং প্রাকৃতিক উপকরণ, যা কম-বেশি আমাদের প্রত্যেকের ঘরে রয়েছে এবং এগুলো বেশ সহজপ্রাপ্যও। কিন্তু শুধু এসব উপকরণ খাওয়ার উপর নির্ভর করলে বা নিয়মিত খেলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা কমে যাবে, এমন ভাবাটা যুক্তিযুক্ত হবে না। গ্যাস বা এসিডিটির প্রভাব কমানোর জন্যে আমাদের নিয়মিত কিছু অভ্যাস তৈরি করতে হবে। এবার সেসব অভ্যাস নিয়ে আলোচনা করা হলো।

খাওয়ার অভ্যাস

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে খাওয়ার অভ্যাস খুব গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। প্রতিদিন দুপুরের এবং রাতের খাবার একটি নির্দিষ্ট সময়ে খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে। রাতের খাবার যত তাড়াতাড়ি সম্ভব খেয়ে ফেলা উচিত। সকালের নাস্তা বেশ ভালোভাবে করার চেষ্টা করতে হবে। অন্যদিকে দুপুরের আহার একটু হালকা করা বাঞ্ছনীয়। একেবারে খুব বেশি না খেয়ে, নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর অল্প খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে।

অতিরিক্ত তেল জাতীয় খাবার পরিহার

যারা নিয়মিত গ্যাসের সমস্যায় ভুগছেন, তারা শুধুমাত্র ঔষধের উপর নির্ভর না করে খাবারের ব্যাপারে বেশি নজর দেয়া উচিত। অতিরিক্ত তেল জাতীয় খাদ্য, ফাস্টফুড, মশলাদার খাবার ইত্যাদি ত্যাগ করা উচিত। দৈনন্দিন খাবারের তালিকায় সুষম খাদ্যের ভারসাম্য মেনে চলা উচিত। নিত্যদিনের খাবারে তেলের ব্যবহার অনেকটাই কমিয়ে আনতে হবে এবং প্রচুর পরিমাণ ফল খেতে হবে।

ধূমপান ত্যাগ করা

অতিরিক্ত ধূমপানের ফলেও গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বেড়ে যেতে পারে। ধূমপান থেকে মুক্তি পাওয়া বেশ কষ্টসাধ্য এবং এর জন্য প্রয়োজন প্রবল ইচ্ছাশক্তির। তবে গ্যাসের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে হলে ধূমপানের অভ্যাস অবশ্যই ত্যাগ করতে হবে।

পর্যাপ্ত ঘুম নিশ্চিত করা

ঘুমের অপর্যাপ্ততা গ্যাসের সমস্যায় একটি খুব গুরুত্বপূর্ণ উপসর্গ। ঘুমের সাথে আমাদের পুরো শরীরের চলাচল সরাসরিভাবে সংযুক্ত। পর্যাপ্ত ঘুম না হলে, অতিরিক্ত চিন্তা করলে অথবা খুব বেশি উত্তেজিত হয়ে থাকলে হজমের ক্ষেত্রে বেশ অসুবিধা হয়। তাই খেয়াল রাখতে হবে যেন পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুম নিশ্চিত করা যায়।

ব্যায়াম

ব্যায়ামের নাম শুনলে অনেকেই ভয়ে দু’পা পিছিয়ে যান। সত্যি কথা বলতে কী, বাংলাদেশের বেশিরভাগ স্বাস্থ্যজনিত সমস্যাগুলোর কারণ হচ্ছে নিয়মিত ব্যায়ামের অভাব। বিশেষ করে চাকুরিজীবীদের ব্যায়াম করাটা আজকের দিনে প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তবে আকাঙ্ক্ষা এবং একাগ্রতা থাকলে প্রতিদিন ২০-৩০ মিনিট ব্যায়াম করা খুব একটা কষ্টসাধ্য ব্যাপার নয়। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার সকলের খেয়াল রাখতে হবে, আমরা যেন দুপুর বা রাতে খাওয়ার সাথে সাথেই শুয়ে না পড়ি। অন্তত খাওয়ার এবং ঘুমানোর মধ্যে এক থেকে দু’ঘণ্টার ব্যবধান থাকা একান্ত আবশ্যকীয়।

এই উপায়গুলো নিয়মিত মেনে চললে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। অবশ্যই সেই সাথে খাবারে অনিয়ম ও তৈলাক্ত ভাজা পোড়া জাতীয় খাবার খাওয়া বন্ধ করতে হবে।

Leave a Comment