পেটের মেদ কমানোর সহজ উপায় | How to reduce belly fat Naturally | How To Lose Belly Fat | Miyanur Alam

সকল বয়সের মানুষের  বড় সমস্যা হল  পেটের মেদ। সাধারণত  বসে কাজ করা, দৈহিক পরিশ্রম কম হওয়ার কারণে পেটে মেদ জমতে পারে। শত চেষ্টা করে বা ডায়েট কন্ট্রোল প্ল্যান করে কিংবা ব্যায়াম করেও পেটের মেদ সহজে কমানো যায় না । ওজন  বেশি হলে,  তা কমিয়ে ফেলার কোন বিকল্প নেই। আবার  তাড়াহুড়া করে ওজন কমাতে গিয়ে অনেকেই বিপদের মুখোমুখি হন। আবার অনেকেই আবার নতুন সমস্যায় পড়ে যান ।

শরীরের বারতি মেদ  শরীরের জন্য ক্ষতিকর । আবার  দৈহিক সৌন্দর্য নষ্ট হয় বাড়তি মেদের কারনে ।

শরীরের বাড়তি মেদ কিভাবে দূর করা যায় ঃ

১.লেবুর সাহায্যেঃ প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এক গ্লাস গরম জল নিয়ে তাতে একটি মাঝারি আকারের লেবুর রস নিন । এবার পান করুন  কোন ধরনের চিনি মিশাবেন না। এটি আপনার দেহের বাড়তি মেদ ও চর্বি কমাতে সব চেয়ে ভালো উপায়। তাছাড়া এর সাহায্যে আপনার শরীরের ওজনও কমে যাবে ।

২.রসুনের সাহায্যেঃ প্রতিদিন সকালে উঠেই খালি পেটে ২/৩ কোয়া মাঝারি আকারের রসুনের রস খেতে পারেন । আবার  চিবিয়ে খেয়ে নিলেও হয়, এর ঠিক পর পরই পান করুন লেবুর রস। এটি আপনার পেটের চর্বি কমাতে দ্বিগুণ দ্রুতগতিতে কাজ করবে। তাছাড়া দেহের রক্ত চলাচলকে আরো বেশি সহজ করবে এটি। অন্যান্য রোগ ব্যাধিও ভাল হয়ে যাবে ।


৩.চিনিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলার সাহায্যেঃ   মিষ্টি জাতীয় খাবার খাবেন না, কোল্ড ড্রিংকস এবং তেলে ভাজা স্ন্যাক্স জাতীয় খাবার থেকে দূরে থাকুন। কেননা এ জাতীয় খাবারগুলোতে অতিরিক্ত ফ্যাট বা চর্বি থাকে ।  যার কারনে শরীরের বিভিন্ন অংশে, বিশেষ করে পেট ও উরুতে খুব দ্রুত চর্বি জমিয়ে ফেলে । শরীরের সৌন্দর্য নষ্ট করে ফেলে । তাই এগুলোর পরিবর্তে ফল খান বা চর্বিমুক্ত খাবার খান।

৪.মাংস থেকে দূরে থাকার সাহায্যেঃ অতিরিক্ত চর্বিযুক্ত মাংস খাবেন না। এর বদলে বেছে নিতে পারেন কম তেলে রান্না করা চিকেন । যাদের শরীরে চর্বি জমে গেছে তারা মাংস খাওয়া থেকে দূরে থাকুন । কারন মাংস  একদিকে যেমন শরীরে চর্বি জমাবে অন্য দিকে হার্টেরও সমস্যা করতে পারে ।

৫.মশলার সাহায্যেঃ  রান্নায় অতিরিক্ত মশলা খাওয়া যদিও  ঠিক নয়। কিছু মশলা ওজন কমানোর  পাশাপাশি যৌন দুরবলতাও দূর করে । যেমন- দারুচিনি, আদা ও গোলমরিচ। এগুলো রক্তে শর্করার পরিমাণ কমাবে ও পেটের মেদ কমাতে সাহায্য করবে। আর তাই এ ধরনের মসলার সাহায্যে রান্না করা তরকারি খান ।


৬.পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমের সাহায্যেঃ অতিরিক্ত ঘুমের কারনে শরীরে সৃষ্টি হতে পারে নানাবিধ সমস্যা ।  আবার  ঘুম ভালো হলে শরীরে মেদ কম জমে এবং জমা মেদও ঝরতে সাহায্য করে। পর্যাপ্ত ঘুম মানসিক চাপ কমানোর সাহায্যে শরীরের ওজন ও মেদ কমায় ।

৭.প্রতিদিন ফল ও সবজি খাওয়ার সাহায্যেঃ  প্রতিদিন সকাল ও সন্ধ্যায়  অন্তত ১০০- ১৫০ গ্রাম ফল ও সবজি খান। এতে আপনার শরীর পাবে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, মিনারেল ও ভিটামিন। আর এগুলো আপনার রক্তের মেটাবলিজম বাড়িয়ে পেটের চর্বি কমিয়ে আনবে সহজেই। সকালে ফল খেলে শরীরে পানি থাকে যার ফলে পেটে মেদ জমে না ।

৮.মানসিক চাপ কমানোর সাহায্যেঃ মানসিক চাপ কমান। কারণ মানসিক চাপের ফলে আপনার শরীরে নানারকম সমস্যা তৈরি হতে পারে। ফলে শরীরের পাচন ক্ষমতা কমে যায় এবং শরীরে মেদ জমতে শুরু করে। মানসিক চাপে থাকা লোকেদের ওজন বেড়ে যায় আবার শরীরে মেদ জমে যায় ।

৯.প্রচুর পানি পান করার সাহায্যেঃ প্রতিদিন প্রচুর জল পান করার ফলে এটা আপনার দেহের মেটাবলিজম বাড়ায় ও রক্তের ক্ষতিকর উপাদান প্রস্রাবের সঙ্গে বের করে দেয়। যার শরীরে মেটাবলিজম বেশী হবে তার শরীরে চর্বি জমার পরিবর্তে বরং শক্তি উৎপন্ন হবে । মেটাবলিজম বাড়ার ফলে দেহে চর্বি জমতে পারে না ও বাড়তি চর্বি ঝরে যায়। বিশেষ করে মহিলাদের জন্য বেশী বেশী পানি পান করা খুবই জরুরী ।

১০.নিজ নিজ  কাজের সাহায্যেঃ  অফিসের কাজ সাধারণত বসেই হয়, সেখানে শারীরিক পরিশ্রমের  সুযোগ নেই। আর  তাই অফিসে যাওয়ার আগে কিছু রাস্তা হেঁটে  যান, আবার অফিসে পোঁছানোর পর  সিঁড়ি দিয়ে উপরে উঠুন। এর ফলে শরীর অনেকটা সক্রিয় হয়। মেদ জমার সুযোগই পাবে না।
#পেটের_চর্বি #Abdominal_Fat

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap