গর্ভবতী মহিলাদের জন্য আতা ফলের উপকারিতা || আতা ফলের বিস্ময়কর কিছু উপকারিতা || শরীফা || নোনা ফল

আতা ফলের পুষ্টিগুণ || আতা ফল || শরীফা || সিতাফল || নোনা ফল

আতা ফল আমরা সবাই চিনি। বাংলাদেশে খুব সাধারণ ও জনপ্রিয় একটি ফল এই আতা। অঞ্চলভেদে নামের কিছুটা পার্থক্য রয়েছে আতা ফলের। একে বাংলায় শরীফা, সিতাফল এবং কিছু কিছু জায়গায় নোনা ফল ও বলে থাকে। ধারণা করা হয়, স্বাদের দিক থেকে কিছুটা নোনতা হওয়ার কারণেই এর এমন নামকরণ হয়েছে। তবে, হিন্দিতে এর নাম রাম ফল।

আতা হলো (Annonaceae) অ্যানোনেসি পরিবারভুক্ত এক ধরণের যৌগিক ফল। এর বৈজ্ঞানিক নাম Annona squamosa। ইংরেজিতে এটিকে বলা হয় Custard-apple, Sugar-apple, sugar-pineapple এবং sweetsop। আতা ফলের ভিতরে ছোট ছোট কোষ থাকে। প্রতিটি কোষের ভিতরে একটি করে বীজ থাকে। বীজের পাশের রসালো ও নরম অংশই খেতে হয়। ফলটি লালচে ও সবুজ বর্ণের হয়ে থাকে। এটি গুচ্ছিত ফল অর্থাৎ একটি মাত্র পুষ্পের মুক্ত গর্ভাশয়গুলো হতে একগুচ্ছ ফল উৎপন্ন হয় ৷

আতা ফলের পুষ্টিগুণ:

এ ফলটিতে রয়েছে নানা পুষ্টি ও ঔষুধি গুণাগুণ। পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ এই ফলটির প্রতি ১০০ গ্রামে পাওয়া যায় শর্করা ২৫ গ্রাম, পানি ৭২ গ্রাম, প্রোটিন ১.৭ গ্রাম, ভিটামিন এ ৩৩ আইইউ, ভিটামিন সি ১৯২ মিলিগ্রাম, থিয়ামিন ০.১ মিলিগ্রাম, রিবোফ্লাবিন ০.১ মিলিগ্রাম, নিয়াসিয়ান ০.৫ মিলিগ্রাম, প্যানটোথেনিক অ্যাসিড ০.১ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ৩০ মিলিগ্রাম, আয়রন ০.৭ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেসিয়াম ১৮ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ২১ মিলিগ্রাম, পটাসিয়াম ৩৮২ মিলিগ্রাম, সোডিয়াম ৪ মিলিগ্রাম।
যা আপনার শরীরের বিভিন্ন রোগের প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে থাকে। আমরা হয়ত অনেকেই জানিনা, এটি বিভিন্ন দেশে দুগ্ধজাত পণ্যের বিকল্প হিসেবে খেয়ে থাকেন।
তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক আতা ফলের কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা সম্পর্কে-

১। হৃৎপিণ্ডের রোগ প্রতিরোধে আতা ফল

আতা ফলের ম্যাগনেসিয়াম মাংসপেশির জড়তা দূর করে এবং হৃদরোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে। এর পটাশিয়াম ও ভিটামিন বি৬ রক্তের উচ্চচাপ নিয়ন্ত্রণ করে এবং হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

২। গর্ভবতী মহিলাদের জন্য আতা ফলের উপকারিতা::
গাইনোকোলজির মতে, গর্ভাবস্থায় আতা ফল খেলে গর্ভপাতের ঝুঁকি কমে। এতে থাকা বিভিন্ন পুষ্টি উপাদানগুলি ভ্রূণের ত্বক, টেন্ডার এবং রক্তনালীগুলির বিকাশে সহায়তা করে। এতে থাকা ভিটামিন বি৬ গর্ভবতী মহিলাদের বমি বমি ভাব এবং সকালের দূর্বলতাকে নিয়ন্ত্রণ করে এবং শারীরক ব্যাথার উপশম ঘটায়।

৩। মাথায় উকুন নির্বংশ করতে আতা ফল

মাথার উকুন নির্বংশ করতে আতাপাতার রস ২ চা চামচ তার সঙ্গে ২/১ চা চামচ পানি মিশিয়ে চূলে লাগিয়ে কিছুক্ষণ রাখলে উকুন মরে যায়। একদিনে কাজ না হলে ২/৩ দিন পর আবার লাগাতে হবে। তবে সাবধানে ব্যবহার করতে হবে যেন চোখে না লাগে, তাহলে চোখ জ্বালা করবে ও লাল হয়ে যাবে।

৪। হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমাতে আতা ফল:
আতা ফলে থাকা ম্যাগনেসিয়াম আপনার কার্ডিয়াক সমস্যা প্রতিরোধে সাহায্য করবে। সেইসঙ্গে এতে থাকা ভিটামিন বি-৬ হোমোকিসস্টাইন নিয়ন্ত্রণ করে। এবং এই ফলে থাকা অ্যামিনো অ্যাসিড আপনার হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করবে।

৫। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আতা:
আপনি যদি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হন, তাহলে রক্তের গ্লুকোজ মাত্রা কমাতে আতা ফল খাওয়া শুরু করুন। এছাড়াও, আতা ফলের ডায়াবেটিস ফাইবারের উপস্থিতিতে চিনির শোষণ কমানো যায়। ফলে আপনার ডায়াবেটিস থাকবে নিয়ন্ত্রণে।

৬। ক্ষত ভালো করার প্রাকৃতিক ভেষজ আতা ফল:
গবেষকদের মতে, আতা ফলের বীজগুলো ক্ষত শুকাতে সাহায্য করে। এর বীজে থাকা এন্টি-ব্যাকটেরিয়াল প্রোপার্টি ব্যবহারের মাধ্যমে ত্বকের গভীরে থাকা কোষের পুনঃবৃদ্ধি করে এবং এটি ক্ষত স্থানের ব্যথা তাৎক্ষণিকভাবে কমাতে সাহায্য করে।

৭। স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে আতা ফল:
এক গবেষণায় দেখা গেছে, আতা গাছের পাতার নির্যাস স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। স্তনের কোষে থাকা বিষাক্ত টক্সিন দূর করে। এছাড়া অ্যান্টি-অক্সিডেন্টপূর্ণ আতা ফল আপনার শরীরের কোষগুলোকে বিভিন্ন ড্যামেজ থেকে রক্ষা করবে।

Don’t forget we read Your’s comments, appreciate ratings, welcome subscribers, and encourage sharing of our channel.
We do our best to provide the best video stuff to our channel viewers.
Thanks a lot for watching this video.

Listen, hope you like this Video.If you like it, please give your friends a chance to share it. Please like share and comments to support our work.

Copyright matters please contact: abrarfahad.imam@gmail.com
© My video is in accordance with the Fair Use Law of Youtube.
© Copyright by Tree Lover channel.
– Please do not REUP
————————————————————————————–
Thanks for watching! Please subscribe our channel for more latest videos.

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap